সব কিছু
লক্ষ্মীপুর বুধবার , ২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং , ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ , ১২ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরের হাজার বছরেরর ইতিহাস, বৈচিত্র্যময় ঐতিহ্য, বিখ্যাত ব্যক্তিদের জীবনী এবং জেলার সব রকম তথ্য নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে “লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’ নামে সুবিশাল গ্রন্থ। ৬শ ২৪ পৃষ্ঠার গ্রন্থটি এ যাবতকালে লক্ষ্মীপুর ভিত্তিক লেখা সর্ববৃহৎ প্রকাশনা হিসেবে সর্বস্তরের পাঠকদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি করেছে। গ্রন্থটি সম্পাদনা করেছেন সানা উল্লাহ সানু। লক্ষ্মীপুরের অনলাইন সংবাদপত্র লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোরের উদ্যোগে বইটি প্রকাশ করেছে উপকূল প্রকাশন

কুরিয়ার সার্ভিস চার্জসহ দাম ১০৫০ টাকা । বিদেশী পাঠকদের জন্য দাম ৩০ ডলার। 

অনলাইনে বইটি ক্রয় করতে এ লিংকে বা http://bit.ly/2Pa1QQx ঠিকানায় ক্লিক করে বাংলা বা ইংরেজিতে আপনার ঠিকানাটি দিন। অথবা ফোনে 01794 822222 অর্ডার করুন।

বইটি যে কারণে পাঠকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে:-

৬২৪ পৃষ্ঠার এ গ্রন্থের প্রতিটি অধ্যায়ের প্রতিটি শব্দ জুড়ে রয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলার নানা ইতিহাস আর মৌলিক তথ্য। আছে বিষয়বস্তু সর্ম্পকিত ছবি এবং ম্যাপ। ইতিহাস বা তথ্যগুলো অনেকের নিকট এতদিন অজানাই ছিল।

প্রথম থেকে ৬ষ্ঠ অধ্যায় পর্যন্ত স্থান পেয়েছে বর্তমান লক্ষ্মীপুর ভূখন্ডের উৎপত্তি, জনবসতি, ঐতিহাসিক শাসন, সংগ্রাম ইত্যাদি বিষয়ের ওপর বিষয় ভিত্তিক নিবন্ধ। এগুলো মূলত লক্ষ্মীপুর নাম সৃষ্টি হওয়ার আগে এ অঞ্চলের ইতিহাস।

সপ্তম অধ্যায় থেকে ধারাবাহিক ভাবে লক্ষ্মীপুর জেলার ইতিহাস ও ঐতিহাসিক বিভিন্ন বিষয়ের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। ইতিহাস বর্ণনার ক্ষেত্রে সাহিত্য বাদ দিয়ে শুধুমাত্র মূল বিষয়টি বর্ণনা করা হয়েছে।

অধ্যায় ভিত্তিক যা আছে
এ গ্রন্থের প্রথম অধ্যায়ের নাম আলোকপাত। ধারাবাহিক ইতিহাস বর্ণনা শুরুর আগে লক্ষ্মীপুর সর্ম্পকে বিশেষ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেয়া হয়েছে এ অধ্যায়ে। তাতে স্থান পেয়েছে লক্ষ্মীপুর প্রোফাইল, লক্ষ্মীপুর জেলা ব্র্যান্ডিং, লক্ষ্মীপুর শব্দের ইংরেজী বানান ও উচ্চারণের মতো কিছু বিষয়।

প্রথম অধ্যায়ে
প্রাচীন যুগের দক্ষিণ বাঙলা, প্রাচীন সমতট জনপদ, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরের আদি ভূখন্ডের ইতিহাস রয়েছে।

দ্বিতীয় অধ্যায়ে
প্রাচীন সমতট জনপদ, ভুলুয়া, লক্ষ্মীপুর নামের উৎপত্তি ও জনবসতির ইতিহাস স্থান পেয়েছে।

তৃতীয় অধ্যায়ে
প্রাচীনযুগ থেকে ইংরেজ শাসনামল পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরসহ বৃহত্তম নোয়াখালী অঞ্চলের শাসন ও শাসকগোষ্ঠির ইতিহাস রয়েছে। যেখানে ৪০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এ অঞ্চলে বিভিন্ন রাজবংশীয় শাসন, সামন্ত রাজাদের শাসন, মুসলিম ও মোঘল শাসন এবং ইংরেজ শাসনের খুঁটিনাটি ওঠে এসেছে।

অধ্যায় চার
সাজানো হয়েছে ১৯৪৭ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এ অঞ্চলের সকল জনপ্রতিনিধিদের তথ্য দিয়ে।

পঞ্চম অধ্যায়ে
বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীগণের লক্ষ্মীপুর আগমন, বিশ্বনেতাদের লক্ষ্মীপুর আগমন, রামগঞ্জের হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, অতীতে জেলা সীমানার অভ্যন্তরে সংগঠিত ওহাবী আন্দোলন, খেলাফত আন্দোলন, ফরায়েজী আন্দোলন এবং সিপাহী বিদ্রোহ সর্ম্পকে তথ্য ও ইতিহাস রয়েছে।

৬ষ্ঠ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলাব্যাপী বিভিন্ন প্রশাসনিক স্থাপনা প্রতিষ্ঠার সময়কাল ও প্রেক্ষাপট রয়েছে।

সপ্তম অধ্যায়
এ অধ্যায় থেকে শেষ অধ্যায় পর্যন্ত লক্ষ্মীপুর জেলার ধারাবাহিক ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। এতে স্থান পেয়েছে লক্ষ্মীপুরের নামকরণ, বিভিন্ন সময়ে লক্ষ্মীপুরের পরিবর্তিত সীমানা, পরিবেশ ও জলবায়ু, প্রাচীন অর্থনীতির ইতিহাস প্রভৃতি বিষয়।

অষ্টম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে উপজেলা পরিষদ গঠন ও উপজেলা নির্বাচনের প্রেক্ষাপট, লক্ষ্মীপুরের উপজেলা সমূহের গঠনকাল, চন্দ্রগঞ্জ থানা গঠনের প্রেক্ষাপট এবং লক্ষ্মীপুরের পাঁচ উপজেলার নামকরণসহ বিস্তারিত ইতিহাস রয়েছে।

নবম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে ইউনিয়ন পরিষদ গঠনের প্রেক্ষাপট, তাতে মধ্যযুগের গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদের সকল পরিবর্তন ও ইতিহাস ধারাবাহিক ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

দশম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার ৫৮ ইউনিয়নের নামকরণসহ বিস্তারিত তথ্য ও ইতিহাস স্থান পেয়েছে।

এগারতম অধ্যায়
সাজানো হয়েছে জেলার সবগুলো পৌরসভার তথ্যও ইতিহাস দিয়ে।

বারোতম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে জেলা পরিষদ গঠনের ইতিহাস এবং লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের নতুন পুরাতন সকল তথ্য ও ইতিহাস জানা যাবে।

তেরতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার ভৌগোলিক অবস্থান তথা জিইওগ্রাফিক্যাল আইডেন্টিফিকেশন এবং গ্লোবাল পজিশন সিস্টেম ব্যবহারের বিষয়াধি জানা যাবে।

চৌদ্দ অধ্যায়ে
মুক্তিযুদ্ধে লক্ষ্মীপুর জেলার একক অবদান নিয়ে আরো গ্রন্থ প্রকাশের তথ্য সংগ্রহ চলছে। তাই এ গ্রন্থের চৌদ্দ অধ্যায়ে লক্ষ্মীপুর জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস না লিখে মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক তথ্য সংযোজিত হয়েছে।

পনেরো অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার সকল স্তরের শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক ইতিহাস জানা যাবে।

ষোল অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার বিষয়।

সতেরো অধ্যায়ে
জেলার স্বাস্থ্যসেবাসহ সকল ধরনের সেবার বিষয় জানা যাবে এ অধ্যায়ে।

আঠারো অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার পেশাজীবি, ব্যবসা, বাণিজ্য, কৃষি,অর্থনীতি, জেলার ঐতিহ্যবাহী খাদ্য ও খাদ্য পণ্যের বিষয়ে মৌলিক তথ্য সংযোজিত হয়েছে এ অধ্যায়ে।

উনিশ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার পর্যটন, দর্শনীয় স্থান, জেলার প্রতœতাত্ত্বিক বিষয়াদি, নদী, খাল, দীঘি ও জলাশয় সর্ম্পকে উপজেলা ভিত্তিক তথ্য সংযোজন করা হয়েছে।

বিংশতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার বিখ্যাত ঈদগাহ সমূহ এবং জেলার শতাধিক হাটবাজারের ইতিহাস স্থান পেয়েছে একুশ অধ্যায়ে।

বাইশতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার স্থানীয় ভাষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, সাহিত্য, লোকজ মেলা ইতিহাস পাবেন এ অধ্যায়ে।

তেইশতম অধ্যায়ে
এ অধ্যায়ে তুলে ধরা হয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলার সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা।

চব্বিশতম অধ্যায়
লক্ষ্মীপুর জেলার শত বছরের জনসমস্যা ও জনপ্রত্যাশা গুলো কি তা জানতে পড়তে হবে এ অধ্যায়।

পঁচিশ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলা সীমানায় জন্মগ্রহনকারি অন্তত দু’শ গুণীব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবনী তুলে ধরা হয়েছে ।

ছাব্বিশতম অধ্যায়
যাদের অনুপ্রেরণায় লক্ষ্মীপুর ডায়েরির মতো এ বিশাল প্রকাশনাটি প্রকাশিত হয়েছে তাদের মধ্যে কয়েকজন শুভানুধ্যায়ির চিন্তা ভাবনা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা পড়া যাবে এ অধ্যায়ে।

বলতে গেলে লক্ষ্মীপুর জেলার এমন কোন বিষয় খুজেঁ পাওয়া যাবে না, যা এ গ্রন্থে কম বেশি আলোচিত হয়নি। সে দৃষ্টিকোন থেকে গ্রন্থটিকে লক্ষ্মীপুরপিডিয়া বললেও ভুল হবে না বলে দাবি  পাঠকদের। 

লক্ষ্মীপুর ডায়েরি প্রকাশনায়: বিভিন্ন ভার্সন ও প্রযুক্তি

প্রিন্ট ভার্সন:
এ বইয়ের প্রথম সংস্করণটি প্রিন্ট ভার্সন আকারে প্রকাশিত হয়েছে। পরিমার্জিত আকারে দ্বিতীয় সংস্করণও প্রকাশিত হবে প্রিন্ট ভার্সনে।

মাল্টিমিডিয়া ও ই-ভার্সন:
মাল্টিমিডিয়া-ভার্সন আকারে তৃতীয় সংস্করণ প্রকাশিত হবে সিডিতে। ৪র্থ সংস্করণ প্রকাশিত হবে ই-ভার্সনে। যা বই পড়ার আধুনিক যন্ত্রে পড়া যাবে।

পডকাস্ট ভার্সন:
বই পড়তে না চাইলে শুনার ব্যবস্থা করা হবে ৫ম পডকাস্ট সংস্করণে।

ইংরেজী-ভার্সন:
ই-ভার্সন আকারে ৬ষ্ঠ সংস্করণ হবে ইংরেজী ভাষায়।

অনলাইন ভার্সন:
প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি বইটি পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে যখন তখন অনলাইনে পড়া যাবে। গুগল প্লে থেকে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস ডাউনলোড করেও বইটি পড়া যাবে।

বাংলাদেশে এ রকম প্রযুক্তি নির্ভর বই প্রকাশ করার ইতিহাস ইতোপূর্বে দেখা যায়নি। যেটা লক্ষ্মীপুর ডায়েরি প্রকাশের ক্ষেত্রে নেয়া হয়েছে। এক কথায় গ্রন্থটি প্রকাশে ডিজিটাল সকল প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে।

গ্রন্থটি  কারা এবং কেন সংগ্রহ করবেন?

লক্ষ্মীপুরের সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে চাকুরী প্রত্যাশী, রাজনীতিবিদ, ছাত্র, শিক্ষক, সাংবাদিক, গবেষক, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, জেলা পরিষদ, পৌরসভার কর্মকর্তা, বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তাসহ যে কোন নাগরিক সংগ্রহ করতে পারবেন।
লক্ষ্মীপুর সর্ম্পকে জানতে আগ্রহী দেশ বিদেশের যে কোন ব্যক্তি এ বইটি সংগ্রহ করতে পারবেন। লক্ষ্মীপুরকে জানতে এ বইটি হবে আপনার ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সেরা উপহার। যেটা আপনি এখনই সংগ্রহ করে রেখে যেতে পারেন। বিভিন্ন উপলক্ষ্যে এ বইটি আপনার প্রিয়জনকে উপহার দিতে পারেন।

শেষ কথা
তথ্য হলো শক্তি; আর ইতিহাস হলো জাতির দর্পণ। ইতিহাস জাতির দিক-দর্শন যন্ত্রের মত কাজ করে। প্রকৃত ইতিহাস চেতনা ব্যতীত বর্তমান কে যেমন উপলব্ধি করা যায় না, তেমনি ভবিষ্যৎ নির্মাণ করাও কঠিন। মানবজাতির বিভিন্ন সময়ের রীতিনীতি, জীবন যাপন প্রণালী, আন্দোলন সংগ্রাম, সাফল্য-ব্যর্থতার কাহিনী ইতিহাসে লিপিবদ্ধ থাকে। লক্ষ্মীপুর কেন্দ্রিক সে রকম একটি ইতিহাস নির্ভর তথ্যভান্ডার নির্মাণে আপনাদের নিঃস্বার্থ সহযোগিতা চাই।

সানা উল্লাহ সানু
সম্পাদক, লক্ষ্মীপুর ডায়েরি
সম্পাদক, লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম।

যেভাবে “লক্ষ্মীপুর ডায়েরি”পাবেন….

গ্রন্থটি পেতে যোগাযোগ করুন:  সানা উল্লাহ সানু,  01794 822222,  ফেসবুকে  fb.com/sanubd

বিকাশ এবং ডাচবাংলার রকেটে মূল্য পরিশোধের পর….

সুন্দরবন কুরিয়ার, এসএ পরিবহন, সাধারণ ডাক, ডাক বিভাগের এক্সপ্রেস মেইল, বিদেশের জন্য ডিএইচএলে বইটি পাঠানোর ব্যবস্থা আছে।

যেখান থেকে সরাসারি ক্রয় করতে পারবেন…

ঢাকা/ চট্টগ্রাম/ লক্ষ্মীপুর/ রামগঞ্জ/ রায়পুর/ কমলনগর/ রামগতি/আলেকজান্ডার এবং চন্দ্রগঞ্জের বিভিন্ন লাইব্রেরিতে গ্রন্থটি পাওয়া যাবে।

অনলাইনে ক্রয় ও যোগাযোগ:

অনলাইনে বইটি ক্রয় করতে এ লিংকে ক্লিক করে বাংলা বা ইংরেজিতে আপনার ঠিকানাটি দিন। অথবা ফোনে অর্ডার করুন।

বইটি অনলাইনে পড়তে ব্রাউজারে টাইপ করুন:  lakshmipur24.com/Ld

ফেসবুকে তথ্য ও মতামত জানাতে ব্রাউজারে টাইপ করুন m.me/lakshmipur24 বা  fb.com/lakshmipur24

ইমেইলে তথ্য ও মতামত জানাতে ব্যবহার করুন: news@lakshmipur24.com

প্রত্যাশা এবং পরিতৃপ্তি…

এক বইতে লক্ষ্মীপুরকে জানতে এ বইটি হবে আপনার ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সেরা উপহার। যেটা আপনি এখনই সংগ্রহ করে রেখে যেতে পারেন। বিভিন্ন উপলক্ষ্যে এ বইটি আপনার প্রিয়জনকে উপহার দিন। 

সর্বশেষ সংবাদ সর্বাধিক পঠিত

Single Page

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম ২০১২ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু
রতন প্লাজা (৩য় তলা) , চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২,ইমেইল: news@lakshmipur24.com