সব কিছু
facebook lakshmipur24.com
লক্ষ্মীপুর শুক্রবার , ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৭ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি
নিজ গ্রামে শায়িত হলেন সাংবাদিক আবদুস শহীদ; তার বর্ণাঢ্য জীবনী

নিজ গ্রামে শায়িত হলেন সাংবাদিক আবদুস শহীদ; তার বর্ণাঢ্য জীবনী

নিজ গ্রামে শায়িত হলেন সাংবাদিক আবদুস শহীদ; তার বর্ণাঢ্য জীবনী

নিজ গ্রামেই চির শায়িত হলেন, লক্ষ্মীপুরের কৃতি সন্তান ও এনটিভির যুগ্ম প্রধান বার্তা সম্পাদক আবদুস শহীদ। রবিবার (২৩ আগষ্ট) রাত সাড়ে দশ টার দিকে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ গ্রামের ইসলামপাড়া এলাকার ‘আফিয়া-বারী হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা’র সামনে কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়। জানাজা বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অংশ গ্রহন করে।

এর আগে করোনাসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে রোববার (২৩ আগষ্ট) বেলা পৌনে ১১টার দিকে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে সাংবাদিক আব্দুস শহীদ ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।  তিনি স্ত্রী ও এক ছেলে রেখে গেছেন । আব্দুস শহীদের বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর।

সহকর্মীরা জানান, গত ২৫ জুলাই আব্দুস শহীদের নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে ২৭ জুলাই তাকে উত্তরায় কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পরদিন তাকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়।

সাংবাদিক আবদুস শহীদের জীবনী:

আবদুস শহিদ, বিশিষ্ট সাংবাদিক, সাংবাদিক নেতা। ছাত্রজীবনে সাংবাদিকতা শুরু করে এ পেশাই পার করে দিয়েছেন প্রায় ৪০ বছর। শুধু সাংবাদকিতাই নয়। সাংবাদিকতার শুরু থেকেই সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে লড়ে যাচ্ছিলেন তিনি। তাই দেশব্যাপী সাংবাদিক পরিবারে আবদুস শহিদ অতিপরিচিত নাম। সে কারণে লক্ষ্মীপুরে জন্ম গ্রহনকারি সাংবাদিকদের মধ্যে জনাব আবদুস শহিদকে মরহুম সানাউল্লাহ নূরীর পরেই মনে করা হয়।

জীবনের বেশিরভাগ সময় ধরে তিনি সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ছিলেন। মৃত্যুর আগেও তিনি বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল এনটিভির সিনিয়র বার্তা সম্পাদক পদে কর্মরত ছিলেন। ছাত্রাবস্থায় সাংবাদিকতায় যুক্ত হন জনাব শহিদ। দীর্ঘদিন দৈনিক দিনকালের চিফরিপোর্টার পদে দায়িত্ব পালনের পর যোগ দেন তৎকালীন লন্ডন ভিত্তিক টেলিভিশন- চ্যানেল এস এ, এরপর এনটিভিতে। তিনি ঢাকার সাংবাদিকদের ট্রেড ইউনিয়ন-ডিইউজের দুই বার সভাপতি ও দুইবার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন। পরে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।

এছাড়া ঢাকা সাংবাদিক সমবায় সমিতির সম্পাদক ছিলেন তিনি। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম, বাংলাদেশ ফিল্ম সেন্সর বোর্ডের সদস্যসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন জনাব আবদুস শহিদ।

পার্লামেন্ট রির্পোটিং, পরিবেশ রির্পোটিং এবং অনুসন্ধানমূলক রির্পোটিং বিষয়ে বিশেষ দক্ষ সাংবাদিক শহিদ সাংবাদিকতার কাজে পৃথিবীর কয়েকটি দেশ সফর করেন। তাঁর জন্ম ১৯৫৭ সালের ১৫ই আগস্ট সাবেক রামগতি বর্তমান কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ গ্রামে। তাঁর বাবা আবদুল বারী ছিলেন এক সময়ের এলাকার অবস্থা সম্পন্ন কৃষক। মাতা আফিয়া খাতুন ছিলেন গৃহিনী।

দাদার বাড়ি ছিল লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার নলডগী গ্রামে। নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে তাদের পরিবার চলে আসে বর্তমান এলাকায়। প্রাথমিক শিক্ষা শেষের পর প্রথমে তিনি কমলনগরের তোরাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হলেও পরে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ হাইস্কুল থেকে ১৯৭৩ সালে এসএসসি পাস করেন।

স্কুল জীবনে তিনি নানা ধরনের লেখালেখি এবং সাহিত্য সংস্কৃতির সাথে জড়িত হন। ঢাকার সিদ্ধেশ্বরী ডিগ্রি কলেজ থেকে তিনি এইচএসসি পাশ করেন। পরে বাংলা বিষয় নিয়ে অর্নাসে ভর্তি হন। সাংবাদিকতা পেশা এবং সাংসারিক চাপের কারণে তিনি অনার্স কোর্স শেষ না করে ডিগ্রী কোর্স করেন। পরে মাস্টার্স ডিগ্রী সম্পন্ন করেন। সে সময়েই তিনি সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত হন। সাপ্তাহিক সচিত্র স্বদেশ, দৈনিক কিষাণ এবং দৈনিক আজাদে সাংবাদিকতা শেষে ১৯৮৭ সালে তিনি দৈনিক দিনকালে যোগ দেন। দিনকাল থেকে শেষে চলে আসেন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায়।

সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন সামাজিক কাজের সাথেও জড়িত। তিনি কমলনগরের একমাত্র কলেজ হাজিরহাট উপকূল ডিগ্রী কলেজ প্রতিষ্ঠার পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এছাড়া কমলনগর উপজেলা গঠনকালীন সময়ে ঢাকাস্থ কমলনগর উপজেলা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি পদে দায়িত্ব নিয়ে উপজেলা বাস্তবায়নের জন্য গণমাধ্যমে বেশ ভূমিকা রাখেন।

সাম্প্রতিক সময়ে তিনি নিজ গ্রামে ১৫ শতক জায়গায় নিয়ে পিতা-মাতার নামে গড়ে তুলেছেন আফিয়া-বারী হাফিজিয়া এতিমখানা। এতিম এবং নদীভাঙ্গা অসহায় পরিবারের শিশুসহ ৭০ টি শিশু ও পাঁচ জন শিক্ষকের আবাসিক ব্যবস্থা রয়েছে এ এতিমখানায়। ঢাকাস্থ লক্ষ্মীপুর জেলা সমিতির জীবন সদস্য জনাব আবদুস শহিদ রাজধানীর বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত লক্ষ্মীপরের সাংবাদিকদের সংগঠন লক্ষ্মীপুর জেলা সাংবাদিক ফোরামের উপদেষ্টা ছিলেন।

জীবনীর তথ্যসূত্র: লক্ষ্মীপুর ডায়েরি

মিডিয়া | সোস্যালমিডিয়া আরও সংবাদ

দুর্যোগপ্রবণ এই দেশে উপকূল সাংবাদিকতাকে উপেক্ষা করার সুযোগ নেই: জাফর ওয়াজেদ

পিআইবি-এটুআই পুরস্কার পেলেন বাংলানিউজের ডালিম হাজারী

জাতিসংঘের তথ্য সমাজ বিষয়ক বিশ্ব সম্মেলন পুরস্কার-২০২১ পেল বিএনএনআরসি

লক্ষ্মীপুর জেলা শহরের পত্রিকার হকারদের মাঝে পরিচয়পত্র বিতরণ

সিটিনিউজে লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জুনায়েদ আহমেদ

রামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের কলম বিরতি কর্মসূচী

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে অনলাইন নিউজপোর্টাল প্রকাশনার নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত, তারিখ: 9/12/2015  
 All Rights Reserved : Lakshmipur24 ©2012-2021
Chief Mentor: Rafiqul Islam Montu, Editor & Publisher: Sana Ullah Sanu.
Sopna Monjil (Ground Floor), Goni Headmaster Road, Lakshmipur, Bangladesh.
Ph:+8801794 822222, WhatsApp , email: news@lakshmipur24.com