সব কিছু
লক্ষ্মীপুর শনিবার , ২৫শে মে, ২০১৯ ইং , ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২০শে রমযান, ১৪৪০ হিজরী

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নোয়াখালীর স্বর্ণদ্বীপ

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নোয়াখালীর স্বর্ণদ্বীপ

কাজী সোহাগঃ  নোয়াখালীর সমতল থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন জাহাজ্জ্যার চরের দু’পাশে থাকা সুবর্ণচর ও সন্দ্বীপের মানুষের মুখে মুখে রয়েছে জলদস্যুদের নিয়ে নানা গল্প, নানা রটনা। কোনো  এককালে এখানে জাহাজডুবি হয়েছিল সেজন্য স্থানীয়রা নাম দিয়েছিলেন জাহাজ্জ্যার চর। তবে বেশিরভাগ মানুষের কাছেই চরটি ছিল আতঙ্কের চর নামে পরিচিত। প্রায় আড়াই হাজার জলদস্যুর অবাধ বিচরণ ভূমি ছিল এই চরে।  তবে এ মুহূর্তে সেসবই অতীত। চরটিকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নতুন স্বপ্ন। নতুন আশা। রূপ নিচ্ছে আন্তর্জাতিক মানে। নামকরণও করা হয়েছে নতুন ‘স্বর্ণদ্বীপ’। এখানেই গড়ে উঠছে সেনাবাহিনীর জন্য আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এ কারণে আতঙ্কের চর থেকে এখন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে স্বর্ণদ্বীপের নাম।

২০১৩ সালে সরকারের পক্ষ থেকে চরটিকে সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেয়া হয়। এরপর থেকেই চরটিকে নিয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে সেনাবাহিনী। আতঙ্কের চর থেকে আন্তর্জাতিক মানে গড়ে তুলতে মূলত ৩ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে সেনাবাহিনী। এগুলো হচ্ছে-সেনা প্রশিক্ষণের জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন, চর রক্ষা করতে বনায়ন ও আশেপাশে থাকা স্থানীয় জনগণের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন। এর বাইরেও রয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা।

নোয়াখালীর সুবর্ণচরের জহির ঘাট থেকে ট্রলারে স্বর্ণদ্বীপে যেতে সময় লাগে প্রায় এক ঘণ্টা। নদীপথ ছাড়া চরে পৌঁছানোর বিকল্প কোনো রাস্তা নেই। যোগাযোগের এ ধরনের প্রতিকূল পরিস্থিতিতেই অনেকটা দুর্বার গতিতে স্বর্ণদ্বীপকে গড়ে তোলার কাজ করছে সেনাবাহিনী। এরইমধ্যে সেখান থেকে প্রায় ২০ হাজার সেনা সদস্য উন্নত প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

এরইমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করেছেন। সেনাবাহিনীর উৎকর্ষতা বাড়াতে চরটিকে বহুমাত্রিক প্রশিক্ষণে ব্যবহার করা সম্ভব হবে। সরকারের দিকনির্দেশনা মেনে এখানে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এদিকে চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গে সেনাবাহিনী জানিয়েছে, প্রাথমিক পর্যায়ে দুর্গম এ দ্বীপে তাঁবুতে অবস্থানের মাধ্যমে সেনা সদস্যরা তাদের যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে অস্থায়ী ও স্থায়ী আবাসনের কাজ শুরু হয়। সেনাবাহিনী এবং বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অধীন জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের যৌথ সহায়তায় এরইমধ্যে স্বর্ণদ্বীপে ২টি সাইক্লোন শেল্টার তৈরি করা হয়েছে।

এসব শেল্টারে  ২০ হাজার গ্যালন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং এবং গ্রিন এনার্জির উৎস হিসেবে সোলার বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। দুর্যোগের সময় প্রতিটি সাইক্লোন শেল্টারে আনুমানিক ৫শ’ মানুষ আশ্রয় নিতে পারবেন। এগুলো চরে বসবাসরত ও অবস্থানরত সকলের জন্য উন্মুক্ত। গত বছরের মে মাসে সংঘটিত ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর সময় বাথান শ্রমিক ও জেলেসহ স্থানীয় জনগণ নবনির্মিত এ সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিয়েছিলো। শিগগিরই আরো তিনটি সাইক্লোন শেল্টার তৈরি করা হবে।

এছাড়াও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের জন্য ২টি লেক খনন করা হয়েছে। সুপেয় পানির জন্য ১ হাজার মিটার গভীর সৌরবিদ্যুৎ চালিত পাম্প খনন এবং বর্ষা মৌসুমে চলাচলের জন্য রাস্তা নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। এদিকে স্বর্ণদ্বীপকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও নদীর ভাঙা-গড়ার হাত থেকে রক্ষা করাটা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছে সেনাবাহিনী।

এ জন্য ৭২ হাজার একর স্বর্ণদ্বীপে বড় পরিসরে বনায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল অত্যন্ত দুর্যোগপ্রবণ। স্বর্ণদ্বীপকে এসব থেকে রক্ষা করতে সেনাবাহিনীর সীমিত বাজেট দিয়ে বনায়ন ও বৃক্ষরোপণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এরইমধ্যে ৬ হাজার ঝাউ গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। হেলিকপ্টার থেকে সিড বোম্বিংয়ের মাধ্যমে ২ টন কেওড়ার বীজ বপন করা হয়েছে। এছাড়া ভিয়েতনাম থেকে আনা ডুয়ার্ফ প্রজাতির ১৫শ’ নারিকেল গাছের চারার সমন্বয়ে পাইলট প্রকল্প হিসেবে কৃষি মন্ত্রণালয়ের কারিগরি সহায়তায় আদর্শ নারিকেল বাগান করা হয়েছে।

এ বাগানের সঙ্গে মাছের খামার ও সবজি চাষ করা হচ্ছে। স্বর্ণদ্বীপ ঘিরে সর্বশেষ চ্যালেঞ্জ হলো আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন। সেনাবাহিনী জানিয়েছে, স্থানীয় জনসাধারণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য এরইমধ্যে স্থানীয় জনগণ ও সেনাবাহিনী সম্প্রীতি নামে একটি সমবায় গঠন করেছে। চরের বিভিন্ন স্থানে ছড়ানো-ছিটানো স্থানীয় জনগণের মহিষ, গরু ও ভেড়ার বাথানগুলো দ্বীপের একটি নির্দিষ্ট এলাকায় স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া ক্ষুদ্র পরিসরে স্বর্ণদ্বীপে একটি ডেইরি প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

এখানে বাথানগুলোতে পালিত মহিষ ও গরুর দুধ সংগ্রহ করে দুগ্ধজাত পণ্য উৎপাদিত হচ্ছে। এসবের পাশাপাশি দ্বীপে ভেড়া ও হাঁস পালনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। স্থানীয় কৃষককে সম্পৃক্ত করে ধান ও রবি শস্য চাষ শুরু হয়েছে। ভবিষ্যতে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে আরো বড় পরিসরে মৎস্য, কৃষিভিত্তিক ও ডেইরি প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা হবে। এখানে শুরু থেকে কাজ করছেন স্বর্ণদ্বীপের টাস্কফোর্স হেডকোয়ার্টার সমন্বয়কারী কর্মকর্তা মেজর মুরশিদুল আজাদ বলেন, প্রায় ৫০ বছর আগে দ্বীপটি জেগে ওঠে। এর পাশেই রয়েছে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ ও নোয়াখালীর সুবর্ণচর। সবমিলিয়ে দুর্গম দ্বীপ হিসেবে এটা পরিচিতি পেয়েছে। নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দ্বীপটিকে প্রশিক্ষণের জন্য উপযোগী করে তোলা হচ্ছে। পাশাপাশি এখানকার জীব-বৈচিত্র্য ও পরিবেশের দিকে নজর রাখতে হচ্ছে।

কেন-কিভাবে আরও সংবাদ

কোর্ট ম্যারেজ কি? কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করতে যা লাগে

সার্টিফিকেটে ভুল থাকলে করণীয়

সার্টিফিকেট হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হলে ফিরে পেতে করণীয়

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নোয়াখালীর স্বর্ণদ্বীপ

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম ২০১২ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু
রতন প্লাজা (৩য় তলা) , চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২,ইমেইল: [email protected]