সব কিছু
facebook lakshmipur24.com
লক্ষ্মীপুর শনিবার , ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং , ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১২ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের লক্ষ্মীপুর অংশ যেন চাষের জমিন

বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের লক্ষ্মীপুর অংশ যেন চাষের জমিন

বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের লক্ষ্মীপুর অংশ যেন চাষের জমিন

হাসান মাহমুদ শাকিল: বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের (এন৯০৮) লক্ষ্মীপুর অংশ প্রায় দুই বছর ধরে খানাখন্দ সৃষ্টি হয়ে চাষের জমিনে পরিণত হয়েছে। মেঘনা নদী হয়ে এ সড়কটি দেশের দক্ষিণাঞ্চলসহ প্রায় ২১ টি জেলার সহজ যোগাযোগ মাধ্যম।

কিন্তু একটু বৃষ্টিতে খানাখন্দগুলো পানি ভর্তি হয়ে কাঁদায় পরিণত হয়। এতে যেকোন সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটার শঙ্কা রয়েছে। স্থানীয়ভাবে এটি লক্ষ্মীপুর-মজুচৌধুরীর হাট সড়ক হিসেবে পরিচিত। তবে এ ব্যপারে জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, সরকার সড়ক সংস্কারের জন্য কোন বরাদ্দ দিচ্ছে না।

এ কারণে সড়কটি খারাপ জেনেও সংস্কারের কাজ করা যাচ্ছে না। তবে যে পরিমাণ অর্থ তাদের কাছে বরাদ্দ আছে তা দিয়ে, সড়কের যেসব স্থানে বেশি সমস্যা সেগুলো মেরামত করা হচ্ছে। খুব শিগগিরই সড়কটির সমস্যা সাময়িকভাবে সমাধান করা হবে। শুক্রবার (১৯ জুন) দুপুরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শাকচর ইউনিয়নের বিইউ চৌধুরী ফিশারি এলাকায় সড়কের কাঁদা ভর্তি গর্তে চট্টগ্রামগামী যাত্রীবাহী বাস, বালুবাহী ট্রাক, লেগুনা ও সিএনজি চালিত অটোরিকশা আটকে যায়।

এসময় বাসের সামনের দিক সড়কে কার্পেটিংয়ের সঙ্গে লেগে থাকতে দেখা যায়। পরে শ্রমিকরা চাকার নিচ থেকে কাঁদা সরিয়ে গাড়ি নিয়ে স্থান ত্যাগ করে। এদিকে মজুচৌধুরীরহাট ফেরিঘাট ও লঞ্চঘাট হওয়ায় প্রায় ১০ কিলোমিটারের সড়কটি জেলার সবচেয়ে বেশি ব্যস্ততম সড়ক। আবার মজুচৌধুরীর হাট এলাকার আশপাশে অন্তত ১০ টি বালু মহাল রয়েছে। যেখান থেকে লক্ষ্মীপুরসহ আশপাশের জেলায় বালু বিক্রি হয়। মেঘনার নদী হয়ে দেশের ২১ জেলার যোগাযোগ থাকায় যাত্রীবাহীবাস প্রতিনিয়ত আসা যাওয়া করে।

আর প্র্রতিদিনই এমন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে গাড়ি চালক ও যাত্রীদের। প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ে যানবাহন। জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর সড়কটি প্রশস্তসহ কার্পেটিং উল্টিয়ে নতুন করে করার জন্য প্রায় ১০০ কোটি টাকার টেন্ডার হয়েছে। প্রায় ৪ মাস আগে রি-টেন্ডারও হয়।

লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনাল থেকে মজুচৌধুরীরহাট লঞ্চঘাট পর্যন্ত সড়কটি প্রায় ১০ কিলোমিটার। কিন্তু বিভিন্ন জটিলতার কারণে সড়ক উন্নয়ন কাজটির বরাদ্দ আসছে না। এই জটিলতা শেষ হতে আরও দুই মাস সময় লাগতে পারে। অন্যদিকে সড়কটি সংস্কারের জন্য কয়েকবার অনুমতি চাইলেও কোন বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। একই সঙ্গে আরও কয়েকটি সড়ক সংস্কার করার জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছিল। তবে জেলা অফিসের ফান্ডে যে টাকা রয়েছে তা দিয়ে সড়কের সমস্যাগুলো সমাধান করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

শাকচর ইউনিয়নের কাদিরাগোজা এলাকার বাসিন্দা শরিফুল ইসলাম জানান, এই সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে খানাখন্দে ভরা। সড়কটি দিয়ে বাইসাইকেল চালাতে গেলেও সমস্যায় পড়তে হয়। বড় ট্রাক, বাস, পিকআপ চলতেতো আরও সমস্যা বেশি। সন্ধ্যার পরই সড়কটি পুরো অন্ধকার হয়ে পড়ে। তখন যানবাহন পুরো মৃত্যুঝুঁকিতে চলাচল করে। ট্রাক চালক জাকির হোসেন জানান, প্রায় ২ বছর ধরে সড়কটির অবস্থা বেহাল।

গত ৬ মাস থেকে সড়কের গর্তে পানি জমে কাঁদা পরিণত হয়। এতে গাড়ি আটকে যায়। এর কারণে মাঝে মাঝে গাড়ি বিকল হয়ে পড়ে। জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুব্রত দত্ত জানান, সড়কটি নতুন করে করার জন্য টেন্ডার হয়েছে। বিভিন্ন জটিলতার কারণে বরাদ্দ আসেনি।

সড়ক সংস্কারের জন্যও সরকার থেকে কোন বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে না। তবে তাদের কার্যালয়ের ফান্ডে যে অর্থ রয়েছে তা দিয়ে সড়কের সমস্যাগুলো সাময়িকভাবে সমাধানের চেষ্টা করা হবে।

সদর আরও সংবাদ

লক্ষ্মীপুর কারাগারে মেয়ে হত্যার আসামী বাবার মৃত্যু

বিয়ার মদসহ লক্ষ্মীপুরে র‌্যাবের হাতে যুবক আটক

লক্ষ্মীপুরে অস্ত্রসহ গ্রেফতার শাহআলমকে জেল হাজতে প্রেরণ

বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের লক্ষ্মীপুর অংশ যেন চাষের জমিন

লক্ষ্মীপুরে ছিনতাই মামলায় কারাগারে থাকা ৪ তরুণকে হিরামনির হত্যাকারী হিসেবে ফেসবুকে প্রচার

লক্ষ্মীপুরে ধর্ষণের পর স্কুলছাত্রীকে হত্যায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে আল্টিমেটাম

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার: লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর (২০১২-২০২০)
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু, উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকূল ইসলাম মন্টু ।
রতন প্লাজা(৩য় তলা), চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০।
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২, ইমেইল: [email protected]