সব কিছু
লক্ষ্মীপুর বৃহস্পতিবার , ২৩শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং , ১০ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৭শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

লক্ষ্মীপুরের ফেরিঘাট পরিবর্তন চেয়ে মন্ত্রনালয়ে ভোলা জেলা প্রশাসকের আবেদন

লক্ষ্মীপুরের ফেরিঘাট পরিবর্তন চেয়ে মন্ত্রনালয়ে ভোলা জেলা প্রশাসকের আবেদন

সানা উল্লাহ সানু/জুনাইদ আল হাবিব: নাব্যতা সংকটের কারণে বিভিন্ন সময়ে ফেরি আটকে চরম উদ্বিগ্ন আর উৎকন্ঠায় পড়তে হয় ভোলা-লক্ষ্মীপুর(মজুচৌধুরীহাট) নৌ-পথে চলাচলকারী ফেরি ও যাত্রীদের। তাছাড়া জোয়ারের জন্য অনেক সময় ঘন্টার পর ঘন্টা মাঝ নদীতে যানবাহন ও যাত্রীবাহী ফেরিকে অপেক্ষা করতে হয়। বছরের বেশিভাগ সময়ে ভোলা-লক্ষ্মীপুর নৌ-রুটে এমন চিত্র দেখা যায়।
ফলে প্রায় বন্ধ হতে যাওয়া দেশের গুরুত্বপূর্ণ এ রুপটি সচল রাখতে ও সময় বাচাঁতে এ রুটের লক্ষ্মীপুর অংশের ফেরিঘাটটি লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীরহাট ঘাট থেকে পরিবর্তন করে কমলনগর উপজেলার মতিরহাটে স্থানান্তরের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন চেয়ে ভোলা জেলাবাসীর পক্ষ থেকে নৌ-মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেছে ভোলা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক। গত ১০ জুলাই তারিখে তিনি নৌ-মন্ত্রনালয়ে এ আবেদন করেন।


ওই আবেদনপত্রে তিনি উল্লেখ করেন, “ভোলা জেলা একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ। ভোলার দুই লাখ মানুষ নানা প্রয়োজনে চট্টগ্রামে অবস্থান করেন। তাদের চট্টগ্রাম যাওয়ার একমাত্র পথ ভোলা-লক্ষ্মীপুর নৌ-পথ। এ ছাড়া ভোলা জেলার মালবাহী ট্রাক এবং দেশের প্রায় ২১টি জেলার মালবাহী ট্রাকসমূহ বরিশাল হয়ে এ রুট দিয়ে চট্টগ্রামে যাওয়া আসা করে। এ পথে যাওয়ার একমাত্র বাহন সী-ট্রাক এবং ফেরি। ভোলার ইলিশা ঘাট থেকে লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীহাট ঘাট পর্যন্ত মাত্র ১-২টি ফেরি চলাচল করে। উক্ত ফেরিতে সময় লেগে যায় ৩-৪ঘন্টা। এ ছাড়া জনসাধারণের চলাচলের জন্য প্রতিদিন একটি সী-ট্রাক এবং বে-ক্রসিং সনদপ্রাপ্ত দু’টি লঞ্চ আসা যাওয়া করে। বছরের অন্যান্য সময়ে বে-ক্রসিং সনদবিহীন লঞ্চসমূহ এ রুটে চলাচল করে। কিন্তু ১৫মার্চ থেকে ১৫নভেম্বর পর্যন্ত নদী খুবই উত্তাল থাকে। এ সময়ে সী-ট্রাক বা বে-ক্রসিং সনদপ্রাপ্ত লঞ্চ ছাড়া জনসাধারণ চলাচল করতে পারে না।
লক্ষ্মীপুরের ফেরিঘাটটি মজুচৌধুরীহাটে হওয়ার কারণে ফেরি লক্ষ্মীপুরের পৌছাঁর পরেও নাব্যতার কারণে আরো প্রায় ১ঘন্টা সময় বেশি লাগে। কিন্ত শুকনোর সময় ফেরি আটকে ৫-৬ঘন্টা সময়ও লেগে যায়।
আবেদনের শেষাংশে ভোলার জেলা প্রশাসক বলেন, মজুচৌধুরীহাট ঘাটের পরিবর্তে মতিরহাটে ফেরিঘাটটি স্থানান্তর করা হলে ১ ঘন্টা সময় কম লাগবে এবং মাঝ নদীতে ফেরি আটকে যাওয়ার সম্ভাবনা কম হবে।” তিনি লক্ষ্মীপুরের ফেরিঘাটটি কমলনগর উপজেলার মতিরহাটে স্থানান্তরসহ এ নৌ-রুটের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য অনুরোধ জানান।

আরো পড়ুন: সকল সমুদ্র বন্দরের সংযোগ নেটওর্য়াক হতে পারে ভোলা-লক্ষ্মীপুর সেতু

স্থানীয়ভাবে জানা যায়, মতিরহাটে ফেরিঘাট স্থাপনের দাবি দীর্ঘ দিনের। চর কালকিনির প্যানেল চেয়ারম্যান ও মতিরহাট বাজারের ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান লিটন বলেন, মতিরহাট থেকে মজুচৌধুরীহাট ঘাট পর্যন্ত যেতে সময় লাগে এক ঘন্টা। কোন কোন সময় ফেরি আটকে গেলেতো আরো ভোগান্তিতে পড়তে হয়।” তিনি আরো বলেন, শুধু সময়ই নয়, সাথে অতিরিক্ত জ্বালানিও খরচ হয়। তার মতে মতিরহাটে ফেরিঘাট স্থাপনের আরেকটি সুবিধা হলো, এখানে ফেরিঘাট স্থাপন হলে চট্টগ্রামের সাথে ভোলার যাতায়াতের সময় কমে যাবে কমপক্ষে ৩ ঘন্টা। আবার খুব সহজেই চট্টগ্রামে পৌঁছা যাবে।
তিনি এ সহজের উদহারণ দিতে গিয়ে বলেন, মতিরহাট থেকে তোরাবগঞ্জ, সেখান থেকে সড়ক পথে নোয়াখালীর সোনাপুর হয়ে ঢাকা বা চট্টগ্রামে পৌঁছা যাবে অনায়াসে। আর জেলা শহরে পৌঁছতে সময় লাগবে মাত্র ৩০মিনিট। এতে সময় ও অর্থ বাঁচবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল বলেন, এ সমস্যা নিয়ে ডিসি কনফারেন্সেও আলোচনা হয়েছে। মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে এর কার্যকরি সমাধান বের করা সম্ভব।

সমস্যা এবং সম্ভাবনা আরও সংবাদ

রায়পুরে চরের জমি প্রভাবশালীদের দখলে ঠাঁই মিলছে না ভূমিহীনদের

টেলিভিশন চ্যানেল নিউজটোয়েন্টিফোরে “স্বপ্নের বাংলাদেশ-লক্ষ্মীপুর’’

লক্ষ্মীপুরে নির্মাণ হবে বঙ্গবন্ধু শেখের কিল্লা স্মৃতি স্তম্ভ

লক্ষ্মীপুরে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন

অভিযান শেষেও লক্ষ্মীপুরের মেঘনায় ইলিশের পেটে ডিম(ভিডিওসহ)

লক্ষ্মীপুরের ৩ চরের ১২ হাজার একর ভূমির জন্য সুনিদির্ষ্ট পরিকল্পনা জরুরি

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম ২০১২ - ২০১৯
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু
রতন প্লাজা (৩য় তলা) , চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২,ইমেইল: [email protected]