রামগঞ্জে অস্ত্রসহ সন্ত্রাসী শাহেদ আলী গ্রেফতার

রামগঞ্জ প্রতিনিধি: রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের শৈরশৈই গ্রামের কাজী বাড়ী থেকে সোমবার ভোরে এস আই ফারুক আহম্মেদ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় পোর্স নিয়ে অস্ত্রসহ শাহেদ আলী ওরফে পাকিস্তানি (২৮) নামে কুখ্যাত সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে। সে পুলিশকে লক্ষ করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়লে পুলিশও ৫ রাউন্ড পাল্টা গুলি ছুড়ে। পুলিশ এ সময় তার কাছ থেকে ১টি পিস্তল, ২টি এলজি এবং ৪ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে ৩নম্বর ভাদুর ইউনিয়নের একটি বাড়ীতে আত্মগোপন করতে এসে স্থানীয় গ্রামবাসীর হাতে আটক হয়েছে পাকিস্তানীর অন্যতম সহযোগী কুখ্যাত ডাকাত মো: সুমন (২৯)। সে একই ইউনিয়নের কেথুড়ী আন্তির বাড়ীর নুর মোহাম্মদের ছেলে। গ্রামবাসী তাকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। গ্রেপ্তারকৃত শাহেদ আলী ওরফে পাকিস্তানী শৈরশৈই গ্রামের কাজীবাড়ির মৃত আইয়ুব খাঁনের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রামগঞ্জ উপজেলার শীর্ষ সন্ত্রাসী শাহেদ আলী পাকিস্তানী বাহিনী গঠন করে কয়েক বছর ধরে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছে। তার বিরুদ্ধে নয়নপুর গ্রামের অপহরণ, হাজীগঞ্জ মডেল কলেজের ছাত্র শামিম হত্যা, নোয়াগাঁও ইউপি বিএনপি নেতা আবিদ হত্যাসহ কয়েকটি ডাকাতির মামলা রয়েছে। পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক আহম্মেদ বলেন, ‘শাহেদ ওরফে পাকিস্তানীকে গ্রেপ্তার করতে বিগত ৫ দিন বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধরে বাড়ির আশেপাশে অবস্থান করে অবশেষে তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি।’ পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের লক্ষ্মীপুর আদালতে প্রেরন করেছে। রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একে এম মনজুরুল ইসলাম আকন্দ ৫ রাউন্ড গুলির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শাহেদ দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছিল।শাহেদ পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী তার বিরুদ্ধে হত্যা, অপহরণ ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের ঘটনায় থানায় একাধীক মামলা রয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক আইন এবং পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ার ঘটনায় পৃথক মামলা দায়েরের হয়েছে।