সব কিছু
লক্ষ্মীপুর বুধবার , ২০শে মার্চ, ২০১৯ ইং , ৬ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ , ১৩ই রজব, ১৪৪০ হিজরী

নভেম্বরে বাংলাদেশে ৮ ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণিঝড়

নভেম্বরে বাংলাদেশে ৮ ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণিঝড়

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও) মতে প্রতিবছর গড়ে পাঁচটি পর্যন্ত ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত হানে এবং এর সঙ্গে সংঘটিত হয় জলোচ্ছ্বাস হয়। তাদের মতে, বাংলাদেশে যত ঝড় সংঘটিত হয়েছে তার মধ্যে ১৯৭০ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ৮টি ঝড়ই হয়েছে এ নভেম্বর মাসে।

 

১# পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর দেশের ইতিহাসে সর্বাপেক্ষা বেশি প্রাণ ও সম্পদ বিনষ্টকারী ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণিঝড় সংঘটিত হয়। হারিকেনের তীব্রতা নিয়ে প্রচণ্ড বাতাস দু’দিন ধরে বারবার আঘাত হানে চট্টগ্রামে এবং সে সঙ্গে বরগুনা, খেপুপাড়া, পটুয়াখালী, চরবোরহানউদ্দিনের উত্তরাঞ্চল, চরতজুমদ্দিন, নোয়াখালীর দক্ষিণাঞ্চল ও হরিণঘাটায়। এই দুর্যোগে শুধু সরকারি হিসাবে  ৫ লাখ কিন্ত বেসরকারি হিসেবে ১০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। সাইক্লোন ভোলা নামের ঘূর্ণিঝড়ে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় প্রায় ২২২ কিলোমিটার এবং জলোচ্ছ্বাসের সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিল প্রায় ১০.৬ মিটার।

২# এর পরে স্বাধীনতার বছর ১৯৭১ সালে ২ বার ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। প্রথমটি নভেম্বরের ৫ তারিখ চট্টগ্রামের উপকূলবর্তী অঞ্চলে তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। মানুষ ও গবাদি পশুর প্রাণহানি ঘটে। তবে ক্ষয়ক্ষতির সঠিক হিসাব পাওয়া যায়নি।

৩# ওই বছরের ২৮-৩০ নভেম্বর সুন্দরবনের উপকূলীয় অঞ্চলে ঘণ্টায় ৯৭-১১৩ কিলোমিটার বায়ুপ্রবাহ ও এক মিটারের কম উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসসহ ঘূর্ণিঝড় সংঘটিত হয়।

৪# ১৯৮৩ সালের নভেম্বরে তীব্র ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম, কুতুবদিয়ার সন্নিকটে কক্সবাজার উপকূল ও সেন্ট মার্টিন দ্বীপের নিম্নাঞ্চল, টেকনাফ, উখিয়া, ময়িপং, সোনাদিয়া, বরিশাল, পটুয়াখালী এবং নোয়াখালীর ওপর দিয়ে বয়ে যায়। এতে ৫০টি নৌকাসহ ৩০০ মত্স্যজীবী নিখোঁজ হয় এবং ২ হাজার ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়।

৫# ১৯৮৬ সালে ৮ নভেম্বর উপকূলবর্তী দ্বীপগুলো এবং চট্টগ্রাম, বরিশাল, পটুয়াখালী ও নোয়াখালীর চরাঞ্চল ঘূর্ণিঝড়ের শিকার হয়। এতে ১৪ ব্যক্তি নিহত হয় এবং ৯৭,২০০ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়।

৬# ১৯৮৮ সালের নভেম্বরে যশোর, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, উপকূলবর্তী দ্বীপগুলো এবং খুলনা-বরিশালের চরাঞ্চলের ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ১৬২ কিলোমিটার বেগে বায়ুপ্রবাহসহ তীব্র ঘূর্ণিঝড় বয়ে যায়। এতে ৫ হাজার ৭০৮ ব্যক্তি নিহত হয়।

৭# ১৯৯৫ সালের নভেম্বরের শেষদিকে উপকূলবর্তী দ্বীপ এবং কক্সবাজারের চরাঞ্চলে ঘণ্টায় ২১০ কিলোমিটার বেগে বায়ুপ্রবাহসহ তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। এতে প্রায় ৬৫০ জনের মৃত্যু ঘটে।

৮# ২০০৭ সালের ১৫-১৭ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘সিডর’ বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলে ভূমিধসের মাধ্যমে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি সাধন করে, যাতে প্রায় তিন হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটে।

এরমধ্যে বাংলাদেশে ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর সংঘটিত ঘূর্ণিঝড়টি পৃথিবীর সর্বকালের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়ংকর প্রাণঘাতী ঝড় হিসেবে ঘোষণা করেছে জাতিসংঘ। চলতি বছরের ১৮ মে জাতিসংঘের বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও) বিশ্বের পাঁচ ধরনের ভয়াবহ প্রাণঘাতী আবহাওয়া ঘটনার শীর্ষ তালিকা প্রকাশ করে।

আরো পড়ুন:

পৃথিবীর সর্বকালের ইতিহাসে ভয়াবহ প্রাণঘাতী ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে: জাতিসংঘ

সাইক্লোন ভোলা আরও সংবাদ

১২ই নভেম্বর, আজকের এ দিনে প্রাণহারায় উপকূলের ৫ লক্ষাধিক মানুষ

ইতিহাসের ভয়াবহ প্রাণঘাতী ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে: জাতিসংঘ

বরগুনায় এক হাজার এক মোমবাতি জ্বালিয়ে ২য় উপকূল দিবস পালনের সূচনা

উপকূলের সুরক্ষা ও উন্নয়নের জন্য চাই ‘’উপকূল দিবস’’

১২ নভেম্বর উপকূলের ১৬ জেলায় পালিত হবে ‘উপকূল দিবস’

দিবসের জন্য আন্দোলন; দেশের ইতিহাসে বিরল ঘটনা

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম ২০১২ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু
রতন প্লাজা (৩য় তলা) , চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২,ইমেইল: [email protected]