সব কিছু
লক্ষ্মীপুর বুধবার , ২১শে আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২০শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

লক্ষ্মীপুরের মোড়ে মোড়ে এখন আর চোখে পড়ে না ঈদ কার্ডের দোকান

লক্ষ্মীপুরের মোড়ে মোড়ে এখন আর চোখে পড়ে না ঈদ কার্ডের দোকান

নিজস্ব প্রতিবেদক,লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর: কয়েক বছর আগেও লক্ষ্মীপুর সদর, রামগতি,রায়পুর,কমলনগর,রামগঞ্জের বিভিন্ন বাজারসহ স্কুল, কলেজের সামনে মোড়ে মোড়ে দেখা যেত অস্থায়ী কিছু দোকান । রমজানের ঈদকে সামনে রেখে তৈরি হতো অস্থায়ী ঈদ কার্ডের এ সব দোকান। পাড়ার স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া বন্ধুরা মিলে গড়ে তুলতো সে দোকান।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বিক্রি করতো পোস্টকার্ড সাইজের কাগজে ছাপা ঈদকার্ড । ছিল বাহারী মিউজিক ঈদকার্ডও। নানান ডিজাইন, প্রচ্ছদ আর পছন্দসই রঙের মাঝে খুঁজে নিত প্রিয়জনকে শুভেচ্ছা জানানোর মজাটা ছিল আলাদা। রমজানের মধ্যভাগ থেকে শুরু হতো বেচাকেনার ধুম।

স্কুল পর্যায়ের কিছু কিছু ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বেশ কদর ছিল এই ঈদ কার্ডের। তারা এক বন্ধু আরেক বন্ধকে ঈদকার্ড দিতে অনেক দূর পর্যন্ত পায়ে হেটে যেতো। এতে তারা সবচেয়ে আনন্দ বোধ করতো।

কিন্তু এর বাহিরে বন্ধু-বান্ধব, প্রেমিক-প্রেমিকা, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ কিংবা সুস্পমর্ক আছে যাদের সঙ্গে এমন মানুষদের কাছে ঈদ কার্ড পাঠিয়ে ঈদ উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানাত সবাই। ঈদ কার্ড ছাড়া যেন আনন্দই জমতো না ঈদে।

রমজান মৌসুমে ডাকঘর গুলোও ঈদকার্ডে চাপে হিমশিম খেতো। দেশ-বিদেশী দূরের বন্ধুদের কাছে ডাকঘরের মাধ্যমে পাঠানো হতো ঈদকার্ড।

অথচ কালের পরিক্রমায় আবহমান গ্রাম বাংলার এ সংস্কৃতিটি হারিয়ে গেল ইন্টারনেট ও এসএমএসের এর আড়ালে। ফলে এখন ঈদ কার্ড’র ব্যবহার কমে গেছে। তাই অলিগলিতে এসব দোকানও বসে না আর আগের মতো।

ঈদকার্ড প্রসঙ্গে সদর উপজেলার চর উভুতির ইসরাত জাহান বলেন, এখন ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে তরুণ-তরুনীরা মোবাইল ফোনের ক্ষুদে বার্তা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মতো নতুন প্রযুক্তির দিকে বেশি ঝুঁকছে। বলতে গেলে ঈদ কার্ডের কোন চাহিদাই এখন নেই।

লক্ষ্মীপুর শহরের দোকান মালিক রাসেল জানান, বছর কয়েক আগেও ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবে কার্ড বেশী বিক্রি হত। কিন্তু বর্তমানে ঈদ কার্ডই নয়, শুধু মাত্র বিয়ের কার্ড ছাড়া আর কোন কার্ডেরই চাহিদা নেই।

এক সময়ে ঈদকার্ড বেশি ব্যবহার করতেন রাজনৈতিক নেতারা। তবে বর্তমানে অনেক রাজনৈতিক নেতারাও মোবাইল এসএমএস দিয়ে ঈদের শুভেচ্ছার কাজটা সেরে ফেলেন অল্পতেই।

এই ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলা যুবলীগের এক নেতা বলেন, ভাই এত সময় কোথায়। মোবাইলে এসএমএস দিলে খরচ ও কম এবং অনেক দূরপ্রান্ত থেকে পৌঁছানো সহজ।

এ নেতা বলেন, শুধুমাত্র রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতাসহ মন্ত্রী-এমপিরা কার্ডে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করলেও সাধারণ মানুষের মাঝে কার্ড কেনার চাহিদা নেই। বর্তমান আধুনিকতায় এমনি ভাবে হারিয়ে যাচ্ছে এ ঐতিহ্যটি।

#eidcard #ঈদকার্ড #হারিয়েযাচ্ছেঈদকার্ড

লক্ষ্মীপুর আরও সংবাদ

লক্ষ্মীপুরে চেয়ারম্যানের গুদামে দুস্থদের চাল

লক্ষ্মীপুরে কৃষককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় মামলা

লক্ষ্মীপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানেেই ভ্রাম্যমান সিএনজি স্টেশন বন্ধ

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর জন্য দোয়া

ফরিদ আহমেদ ভূইয়া একাডেমীতে ইভটিজিং ও মাদকবিরোধী সভা

ঢাকাস্থ লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্র ফোরামের নতুন কমিটি গঠন

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম ২০১২ - ২০১৯
সম্পাদক ও প্রকাশক: সানা উল্লাহ সানু
রতন প্লাজা (৩য় তলা) , চক বাজার, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০
ফোন: ০১৭৯৪-৮২২২২২,ইমেইল: [email protected]