সব কিছু
facebook lakshmipur24.com
লক্ষ্মীপুর শনিবার , ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১০ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি
তিন কারণে মেঘনায় হারিয়ে যাচ্ছে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর

যে কারণে মেঘনায় হারিয়ে যাচ্ছে কমলনগর

যে কারণে মেঘনায় হারিয়ে যাচ্ছে কমলনগর

নদীতীরের কোন এক এলাকায় গড়ে ওঠেছে একটি শিক্ষিত কমিউনিটি। যেখানের ছেলে-মেয়েরা দেশের নামি-দামি ভার্সিটিতে পড়ছে। এক থেকে অন্যের মাঝে সভ্যতার একটা ভিত গড়ে ওঠেছে। সেখানের ছেলেদের দেখেছি, ক্রিকেট উন্মাদনায় মেতে উঠতো। বিপিএল, আইপিএলের আদলে তারা টুর্নামেন্টের আয়োজন করতো এইচপিএল।

একটা এলাকার বিরাট অংশজুড়ে শিক্ষিত তরুণদের মধ্যে এতটাই বন্ধন ছিল যে, এইচপিএল নামের টুর্নামেন্টটি বেশ জাঁকজমকপূর্ণভাবে আয়োজন হতো। খেলাটি দেখার জন্য আমি ৭-৮কিলোমিটার মেঠোপথ ছুঁয়ে যেতাম। আমার স্মৃতিতে এখনো জমা টুর্নামেন্টটির চার-ছক্কার মার কিংবা উইকেট শিকার যত আক্রমনাত্মক দৃশ্য। একটা সময় এসে ওখানের মাঠে বল গড়ায় না! কারণ কি? দেখতে পেলাম, এলাকার তরুণরা একে অপরের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে৷ একেকজন একেক এলাকার বাসিন্দা। এখন আর একসঙ্গে কারো আড্ডা হয় না। বল-ব্যাটে কারো এখন আর একসঙ্গে ক্রিকেট খেলা হয় না।

এ এইচপিএল হচ্ছে, হাজিগঞ্জ প্রিমিয়ার লীগ। কমলনগর উপজেলার পশ্চিম চর লরেন্সে এ বাজারটির অবস্থান। কিন্তু, নদীরগর্ভে এ বাজারটি এখন আর নেই। তিন-চার বছর আগেই মেঘনার পেটে হারিয়ে যায় হাজিগঞ্জ বাজার, বাজার এলাকার জনপদ। বলে রাখা ভালো, ওখানে আমার নানার বাড়ি। ছোট বেলার অনেক স্মৃতি বিজড়িত একটি স্থান আমার। ছোট বেলায় কত যে দূরন্ত স্বভাবের ছিলাম, নলকূপের পানিতে কপাল ফেটে কপালে দাগ রয়ে যাওয়ার চিহ্নটি এখনো আমাকে ওই অঞ্চলের কথা বার বার মনে করিয়ে দেয়। হাজিগঞ্জ এলাকার কয়েক একর জমি ছিল নানাদের। ওয়ারিশ সূত্রে পাওয়া আমাদের সাড়ে ৫গন্ডা জমিও নদীতে ভেঙে গিয়েছিলো।

বলতে চেয়েছিলাম, একটি সভ্যতার অপমৃত্যু ঘটেছে। এমন উদাহরণ হয়তো একটি জায়গার। কিন্তু কমলনগর উপজেলায় এমন আরো গল্প পাওয়া যাবে। লেখালেখিতে আজ ৫বছর পেরিয়ে ৬বছরে। লেখালেখির শুরু থেকেই কমলনগরের নদীভাঙন নিয়ে লেখালেখি করে আসছি। একটা পর্যায়ে এসে এখন আর নদীভাঙন নিয়ে লিখতে গিয়ে শব্দ সংকটে পড়ে যাই। লেখার ভাষা খুঁজে পাই না, মানুষের কষ্ট আর কিভাবে তুলে ধরি। তারপরেও চেষ্টা করি৷ কমলনগরে নদী কেন ভাঙে? কারণ খোঁজার সৃষ্টি করি৷ এখন উপলব্ধি হলো, তিনটি কারণে কমলনগরের নদীভাঙছে। প্রতিনিয়ত বিলীন হচ্ছে, বিস্তীর্ণ জনপদ। দেখার কেউ নেই।

কারণ, এক. মজবুত বেড়িবাঁধ। নদীভাঙন প্রতিরোধে বেড়িবাঁধ নির্মাণকে আমি অবশ্যই প্রধান উপায় হিসেবেই স্থান দেব। বেড়িবাঁধ নির্মাণের কারণে, নদী এসে থমকে গেছে রামগতির চর আলেকজান্ডারে। সেনাবাহিনীর দ্বারা নির্মিত এ বেড়িবাঁধটি মজবুত বলে সবখানেই প্রশংসা কুড়াচ্ছে। এটা নিঃসন্দেহে একটি বড় উদাহরণ হতে পারে। যার কারণে সেখানে নদীভাঙন নেই। ওই এলাকাটি একটি পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। অন্যদিকে কমলনগরের মাতাব্বরহাট নদীতীর রক্ষা বাঁধে যে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে, তার অনিয়ম, দুর্নীতির কথা সবারই জানা। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দিয়ে একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণের কারণে এ বেড়িবাঁধ ১০বার ধ্বসে পড়েছে। যার কারণে, নদীভাঙন রোধে মজবুত বেড়িবাঁধ অন্যতম একটি বড় উপায়।

দুই. দ্বিতীয় কারণটি হচ্ছে, নাব্যতা সংকটের কারণে মেঘনা নদীর চ্যানেল জোয়ারের স্রোত চলাচলে বাঁধাগ্রস্থ হয়। নদী শাসন না করার কারণে নাব্যতা সংকট নদীভাঙনের অন্যতম একটা কারণ হয়ে ওঠেছে। নদীবাঁধের সঙ্গে ড্রেজিং করার কথা থাকলে নদীতে ড্রেজিং হয়নি। যার কারণে নদীর পানি চলাচলে বাঁধা পেয়ে তীরের দিকে ধেয়ে আসে এবং তীরে এসে প্রবল বেগে ধাক্কা দেয়। জোয়ারের পানিতে এ ভাঙনটা তীব্র হয়ে ওঠে।

তিন. তৃতীয় কারণটি হচ্ছে, নৌ-পথে জাহাজের অনিয়ন্ত্রিত চলাচল। তৃতীয় কারণটি হচ্ছে, ঢাকা- চট্টগ্রাম নৌ-রুটে যে জাহাজগুলো চলছে, সে জাহাজগুলো একদম নদীর কিনার দিয়ে যায়৷ এ কারণে, নদীর পানির স্রোতও অস্বাভাবিকভাবে তীরে আঘাত করে এবং নদীভাঙে জোরেশোরে। সরকার এ জাহাজগুলো থেকে দৈনিক কোটি কোটি টাকা আয় করে। কিন্তু কমলনগর এ জাহাজগুলো দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সে দিকে কোন ব্রুক্ষেপ নেই।

নদীভাঙন আরও সংবাদ

সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবি

রামগতি ও কমলনগরে ৩৪শ মিটার বাধঁ নির্মাণের টেন্ডার প্রকাশ, সেনাবাহিনী চায় এলাকাবাসী

বড় প্রকল্প পাশ তবুও শঙ্কায় এলাকাবাসী; ৩০ বছরে মেঘনায় বিলীন লক্ষ্মীপুরের ২শ ৪০ বর্গকিমি

লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীর তীররক্ষা বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন হওয়ায় ঢাকায় বর্ণাঢ্য মিছিল

একনেক মিটিং-এ মেঘনা নদীর তীররক্ষা বাঁধ প্রকল্প পাশ

একনেক মিটিং-এ মেঘনা নদীর তীররক্ষা বাঁধ প্রকল্প পাশের দাবীতে লক্ষ্মীপুরে মানববন্ধন

লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে অনলাইন নিউজপোর্টাল প্রকাশনার নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত, তারিখ: 9/12/2015  
 All Rights Reserved : Lakshmipur24 ©2012-2021
Chief Mentor: Rafiqul Islam Montu, Editor & Publisher: Sana Ullah Sanu.
Sopna Monjil (Ground Floor), Goni Headmaster Road, Lakshmipur, Bangladesh.
Ph:+8801794 822222, WhatsApp , email: news@lakshmipur24.com