লক্ষ্মীপুর সরকারী কলেজের সেই দু’ছাত্রলীগকর্মী বহিষ্কার

নিজস্ব প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের প্রাণি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আবদুল্লাহিল হাসানকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় ছাত্রলীগকর্মী কামরুল হাসান সৌরভ ও নাহিদ হোসেনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

কলেজের অধ্যক্ষ সোলায়মান শুক্রবার দুপুরে বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে বলেও জানান তিনি।

অধ্যক্ষ সোলায়মান বলেন, ‘শিক্ষক পরিষদের এক জরুরী সভায় বিষয়টির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছাত্রলীগকর্মী কামরুল হাসান ও নাহিদ হোসেনকে কলেজ থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।’

কলেজের প্রাণীবিদ্যার শিক্ষক জনাব হাসান বলেন, বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দ্বাদশ শ্রেণির অর্ধসমাপনী পরীক্ষা চলাকালে মানবিক শাখার ছাত্র “সৌরভকে নকল করতে বাধা দেয়ায় আমার ওপর হামলা হয়। এতে আমার চশমাও ভেঙে গেছে।”

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক পরীক্ষার্থী জানান, পরীক্ষা চলাকালে ওই শিক্ষক সৌরভের কাছ থেকে নকলের কাগজ কেড়ে নেন। এতে সৌরভ ক্ষিপ্ত হয়ে হাসানকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। টের পেয়ে অন্য শিক্ষকরা এগিয়ে এলে দোতলা থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায় সৌরভ।

এ ঘটনায় শিক্ষকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হলে শুক্রবার শিক্ষক পরিষদের সভায় জড়িত ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করা ও তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

তবে বৃহস্পতিবার কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন আলম বলেন, “সৌরভ আমাদের কর্মী। তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তা মিথ্যা। শিবির ও ছাত্রদলের কর্মীরা গুজব রটিয়েছে।”
কিন্তু শুক্রবার কলেজ শিক্ষক পরিষদের সিদান্তের পর লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আমজাদ উদ্দিন আজিম জানান শিক্ষককে লাঞ্চিত করার ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগের দু’জনের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া ও হবে।