চলতি সপ্তাহে জেএসসি ও জেডিসির কোন পরীক্ষা হবে না

নিজস্ব প্রতিনিধি: যুদ্ধাপরাধের রায়ের প্রতিবাদে জামায়াতে ইসলামীর হরতালের কারণে চলতি সপ্তাহের বুধ ও বৃহস্পতিবারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষাও পিছিয়েছে। এ নিয়ে এ সপ্তাহের ৪ দিনের সকল পরীক্ষা পিছানো হলো।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ৫ নভেম্বরের (বুধবার) পরীক্ষা আগামী ১৯ নভেম্বর এবং ৬ নভেম্বরের (বৃহস্পতিবার) পরীক্ষা আগামী ২০ নভেম্বর হবে। দুই দিনই পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ১০টা থেকে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সভাপতিত্বে এক জরুরি সভায় এই তারিখ ঠিক করা হয় বলে এতে জানানো হয়। খবর বিডিনিউজ

বুধবার জেএসসিতে ইংরেজি প্রথম পত্র ও জেডিসিতে আরবি প্রথম পত্র এবং ৬ বৃহস্পতিবার জেএসসিতে ইংরেজি দ্বিতীয় পত্র ও জেডিসিতে আরবি দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা ছিল।

হরতালের কারণে এর আগে রবি ও সোমবারের জেএসসি-জেডিসির পাঁচটি পরীক্ষা পিছিয়ে যায়। এ নিয়ে এবারের জেএসসি-জেডিসির মোট নয়টি বিষয়ে পরীক্ষা পিছিয়ে গেল।

হরতালের কারণে পিছিয়ে যাওয়া জেএসসি-জেডিসির ২ নভেম্বরের পরীক্ষা ৭ নভেম্বর এবং ৩ নভেম্বর পরীক্ষা আগামী ১৪ নভেম্বর নেওয়া হবে।

রোববার (২ নভেম্বর) জেএসসিতে বাংলা প্রথম পত্র এবং জেডিসিতে কুরআন মজিদ ও তাজবিদ পরীক্ষা ছিল। এই পরীক্ষা এখন ৭ নভেম্বর সকাল ৯টা থেকে হবে।

আর সোমবার (৩ নভেম্বর) জেএসসিতে বাংলা দ্বিতীয় পত্র এবং জেডিসিতে আত-তাওহীদ ওয়ালফিকহ এবং আকাইদ ও ফিকহ পরীক্ষা ছিল। এ পরীক্ষাগুলো হবে ১৪ নভেম্বর সকাল ৯টায়।

যুদ্ধাপরাধ মামলায় মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির দণ্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতি, রবি ও সোমবার হরতাল ডাকে জামায়াতে ইসলামী।

এছাড়া মো. কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায়ের প্রতিবাদে বুধবার এবং মীর কাসেম আলীর একই দণ্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার হরতাল করবে জামায়াত।

২ নভেম্বর থেকে জেএসসি-জেডিসির পরীক্ষা শুরুর কথা থাকলেও লাগাতার হরতালের কারণে এ পরীক্ষা শুরু নিয়েই জটিলতা দেখা দেয়।

বাংলাদেশের ২ হাজার ৫২৫টি কেন্দ্রে এবার ২০ লাখ ৯০ হাজার ৬৯২ জন শিক্ষার্থী জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেবে।

গত বছরের জেএসসি-জেডিসির কয়েকটি পরীক্ষাও বিএনপি-জামায়াতের হরতালের কারণে পিছিয়ে যায়।